এই সুন্নিপিডিয়া ওয়েবসাইট পরিচালনা ও উন্নয়নে আল্লাহর ওয়াস্তে দান করুন
বিকাশ নম্বর ০১৯৬০০৮৮২৩৪

ঈদে মিলাদুন্নবী (সঃ) * কারবালার ইতিহাস * পিস টিভি * মিলাদ * মাযহাব * ইলমে গায়েব * প্রশ্ন করুন

বই ডাউনলোড

ইয়াজিদের মসনদ দখল

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
কারবালার ইতিহাস


  • ইয়াজিদের মসনদ দখল





























হযরত আমীরে মুয়াবিয়া (রাঃ)এর ইন্তেকালের পর ইয়াযীদ সিংহাসনে আরোহন করলো এবং আরোহন করার সাথে সাথেই তার মনের মধ্যে সীমাহীন অহঙ্কার ও গর্ববোধের সৃষ্টি হলো। যার ফলে সে এমন কাজ-কর্ম শুরু করলো, যা মহান দ্বীনী শরীয়তের সম্পূর্ণ বিপরীত। প্রায় মানুষ-ই ক্ষমতার মোহে বিভোর হয়ে ধরাকে সরা জ্ঞান করে। যেমন; ফিরআউন প্রথমে গরীব ছিল, কিন্তু ভাগ্যক্রমে বাদ্শা হয়ে সিংহাসনে আরোহন করার সাথে সাথে এমন অহঙ্কারী হয়ে বসলো যে, শেষ পর্যন্ত নিজেকে খোদা বলে ঘোষণা করলো এবং বলতে লাগলো, ‘আমি তোমাদের সবচেয়ে বড় খোদা’। আমার পূজা, আরাধনা কর। সে-ই রক্ষা পাবে যে আমার পূজা করবে। আর যে আমার পূজা করতে অস্বীকার করবে, তাকে আমি খতম করবো। একমাত্র এ কারণেই সে অনেক লোকের গর্দান দ্বিখন্ডিত করেছিল। তাঁদের অপরাধ ছিলো, তাঁরা তার পূজা করতেন না এবং তাকে মা’বূদ মানতে অস্বীকার করেছিলেন। তদ্রুপ ইয়াযীদও যখন সিংহাসনে বসলো, তখন সে বাপের বর্তমানে যে সব গর্হিত কাজকর্ম গোপনে করতো, সে সব এখন প্রকাশ্যে করতে লাগলো । যেহেতু এখন তাঁকে নিষেধ করা বা বাঁধা দেয়ার কেউ নেই সেহেতু সে এখন যা খুশি তা করতে লাগলো । মদ্যপান, জেনা এবং অন্যান্য কুকর্ম তাঁর নিত্য দিনের অভ্যাসে পরিণত হল । সে মনে মনে ভাবলো ‘আমার চাল-চলন এবং স্বভাব-চরিত্র, তা কেউ সহজে মেনে নিবে না । বিশেষ করে যে সব গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ আছেন তারা তাঁর এ রাজত্ব মেনে নিবেন না; তারা তাঁর হাতে বায়াত করবেন না; তাঁদের অস্বীকৃতির কারনে অন্যদের মধ্যেও অস্বীকৃতির প্রভাব বিস্তৃত হবে । এজন্য এটাই সমীচীন হবে যে, আমি তাঁদের তলব করবো । যদি তারা অস্বীকার করেন, তখন তাঁদেরকে কতল করাবো, যাতে আমার রাস্তার এ সব বড় বড় প্রতিবন্ধকতা অপসারিত হয় এবং আমার খেলাফতের রাস্তা যেন কণ্টকমুক্ত হয়ে যায় । তাই সে ক্ষমতায় আরোহণ করার পর পরই হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ), হযরত আব্দুল্লাহ বিন যুবাইর (রাঃ), হযরত আব্দুল্লাহ বিন উমর (রাঃ) প্রমুখ থেকে বাইয়াত তলব করলো। এসব ব্যক্তিগণ বিশেষ সম্মানিত ব্যক্তি ছিলেন এবং বিশেষ গণ্যমান্যদের বংশধর ছিলেন। তাই তাঁরা কিভাবে ফাসিক-ফাজির ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত করতে পারেন? সুতরাং তাঁরা অস্বীকার করলেন এবং এটা তাঁদের মর্যাদাগত সদাচরণই ছিল। অস্বীকার করার পর হযরত আব্দুল্লাহ বিন উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু, হযরত আব্দুল্লাহ বিন যুবাইর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু মদীনা শরীফ থেকে মক্কা শরীফে চলে গেলেন।

হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) মদীনা শরীফ-এর গভর্নর ওয়ালীদের আহবানে তার দরবারে তাশরীফ নিয়ে গেলেন, তার সঙ্গে আলোচনা করলেন। মদীনার গভর্নর বললো, ইয়াযীদ আপনার বাইয়াত তলব করেছেন। তিনি বললেন, ‘আমি ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত করতে পারি না। ইয়াযীদ হলো ফাসিক-ফাজির, এ ধরণের অনুপযুক্ত লোকের হাতে আমি বাইয়াত করতে পারি না। আমি কোন অবস্থাতেই ওর হাতে বাইয়াত করতে রাজী নই।’ তিনি সুস্পষ্টভাবে অস্বীকার করলেন। এটা ছিল তাঁর মর্যাদাগত আচরণ। দেখুন, তিনি যদি বাইয়াত করতেন, তাহলে নিজের প্রাণ বাঁচতো, পরিবার-পরিজন বাঁচতো, হয়তো এমনও হতো যে, অগাধ সম্পত্তির মালিকও তিনি হয়ে যেতেন। কিন্তু ইসলামের আইন-কানুন ছত্রভঙ্গ হয়ে যেত এবং কিয়ামত পর্যন্ত ফাসিক-ফাজিরের আনুগত্য বৈধ হয়ে যেত এবং তাদের কাছে হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ)এর আনুগত্য প্রধান দলীল হিসেবে পরিগণিত হতো। লোকেরা বলতো, হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) যখন ফাসিক-ফাজিরের আনুগত্য স্বীকার করেছেন, তাহলে নিশ্চয়ই এটা জায়িয।

কিন্তু ইমাম হুসাইন (রাঃ) অস্বীকারের মাধ্যমে বিশ্ববাসীর সামনে প্রমাণ করে দিলেন, হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) শত দুঃখ-কষ্ট ভোগ করতে পারেন, অনেক বিপদ-আপদের মুকাবিলা করতে পারেন, এমন কী আপন পরিজনের সমস্ত লোকদের নির্দয়ভাবে শহীদ হওয়াটা অবলোকন করতে পারেন; নিজেও জালিমদের হাতে নির্মমভাবে শাহাদাত বরণ করতে পারেন, কিন্তু ইসলামের নিযাম বা বিধান ছত্রভঙ্গ হওয়া কিছুতেই সহ্য করতে পারেন না, নিজের নানাজান (ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)এর দ্বীন ধ্বংস হওয়াটা কিছুতেই মেনে নিতে পারেন না। হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) নিজের কাজ ও কর্মপন্থা দ্বারা তা প্রমাণ করেছেন এবং দুনিয়াবাসীকে এটা দেখিয়ে দিয়েছেন, আল্লাহ তায়ালার মনোনীত ও খাছ বান্দাগণের এটাই শান যে, বাতিলের সামনে বুক ফুলিয়ে দাঁড়িয়ে যান এবং তীর তলোয়ারের সামনে বুক পেতে দেন, কিন্তু কখনও বাতিলের সামনে মাথা নত করেন না। হযরত ইমাম হুসাইন (রাঃ) নিজের আমল দ্বারা তাঁর উচ্চ মর্যাদার পরিচয় দান করেছেন এবং জনগণের সামনে নিজের পদমর্যাদা তুলে ধরেছেন।

তথ্যসূত্র

  • কারবালা প্রান্তরে(লেখকঃ খতিবে পাকিস্তান হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ শফী উকাড়বী(রহঃ))