ঈদের দিনে সুন্নাত ও মুস্তাহাব সমূহ

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
ঈদ


  • ঈদের দিনে সুন্নাত ও মুস্তাহাব সমূহ
১) নিজ মহল্লার মসজিদে ফজরের নামাজ আদায় করা
২) মিসওয়াক করা
৩) গোসল করা
৪) খুশবু লাগানো
৫) সাদাকায়ে ফিতর যার জন্য ওয়াজিব তা নামাজের পূর্বেই আদায় করে নেয়া
৬) সাধ্যানুযায়ী উত্তম পোশাক পরিধান করা
৭) খুশী ও আনন্দ প্রকাশ করা
৮) ঈদুল ফিতরে ঈদের ময়দানে যাওয়ার পূর্বে কিছু নাস্তা করা
৯) মিষ্টি জাতীয় ও বিজোড় সংখ্যক খেজুর দিয়ে এই নাস্তা করা
১০) সামর্থ অনুযায়ী অধিক পরিমাণ দান সাদাকা করা
১১) আগেভাগে ঈদগাহে যাওয়া
১২) পায়ে হেটে ঈদগাহে যাওয়া
১৩) ঈদগাহে একপথে যাওয়া এবং অন্য পথ ধরে ফিরে আসা
১৪) ঈদগাহে যাওয়ার সময় চুপে চুপে তাকবীরে তাশরীফ অর্থাৎ বলাঃ আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার ওয়ালিল্লাহিল হামদ । ঈদগাহে পৌছার পর তাকবীর বলা বন্ধ করে দিতে হবে । এক রেওয়ায়েত অনুযায়ী ঈদের নামায আরম্ভ হওয়ার পূর্বে তাকবীর বলা মুস্তাহাব । ঈদুল আযহার দিন ঈদগাহে যাওয়ার পথে উল্লেখিত তাকবীরটি জোরে জোরে পড়া মুস্তাহাব (আলমগীরী, ১ম খন্ড)
১৫) ঈদগাহে ঈদের জামা’আত করা
১৬) কুরবানি ঈদের দিন যে লোক নিজের পক্ষ থেকে কুরবানি করবে, তাঁর জন্য ঈদের নামায ও কুরবানির জন্তু জবেহ্‌ করার পর নখ ও লোম কাটা মুস্তাহাব । এভাবে হাজীদের সাথে তাঁর সামঞ্জস্য ঘটে । যেহেতু হাজী সাহেবগণও কুরবানির পর নখ কাটা মাথা কামানো ইত্যাকার কাজগুলো করে থাকেন (আলমগীরী, ১ম খন্ড)
১৭) মুসলিম শরীফে বর্নিত হয়েছে, নবী করীম (সঃ) ইরশাদ করেছেনঃ যখন যিলহাজ্জের চাঁদ উঠে তখন তোমাদের যে কেউ কুরবানির ইচ্ছা করবে সে কুরবানি পর্যন্ত নখ ও চুল ইত্যাদি কাটবে না (দুররুল মুখতার, ১ম খন্ড)
১৮) ঈদুল আযহার দিন ঈদের নামাযের পূর্বে কিছু না খাওয়া মুস্তাহাব । দিনের প্রথম খাবার হিসেবে কুরবানির গোস্ত খাওয়া মুস্তাহাব । সাধারণ লোকের মাঝে প্রচলিত রয়েছে, কুরবানির গোস্ত খাওয়া পর্যন্ত বিলম্বিত সময়টিকে তারা রোযা বলে আখ্যায়িত করে । এরূপ মনে করা ভ্রান্তি ও গুনাহ ।
১৯) ধীরস্থিরভাবে ঈদগাহে যাওয়া মুস্তাহাব;

[1]

ঈদ


  • ঈদের দিনে সুন্নাত ও মুস্তাহাব সমূহ

তথ্যসূত্র

  1. ফাতাওয়া ওয়া মাসায়েল (ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ)