উম্মতের দরুদ ও সালাম ফেরেশতাগণ রাসুল (সঃ)এর কাছে পৌঁছে দেন

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
কবরের জীবন























  • উম্মতের দরুদ ও সালাম ফেরেশতাগণ রাসুল (সঃ)এর কাছে পৌঁছে দেন



রওজা মোবারকের পাশে দাড়িয়ে দরুদ ও সালাম পাঠ করলে, স্বয়ং হুজুর (সঃ) নিজ কানে তা শুনতে পান । আর দূর হতে কেউ পাঠ করলে, ফেরেশতাগণ তা হুজুরের কাছে পৌঁছে দেন ।

— নাসাই, ইবনে হেব্বান, তারগিব,তারহিব

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাঃ) বলেন, রাসুলুল্লাহ্‌ (স) বলেছেন, আল্লাহ্‌ তা’লার অগনিত ফেরেশতা রয়েছেন যারা দুনিয়াতে ঘরাফেরা করেন, আর আমার প্রতি আমার উম্মতের সালাম আমার কাছে পৌঁছে দেন ।

— তারগিব, তারহিব, তাবারানি

ইতিপূর্বে হযরত আউস ইবনে আউস (রা) হতে বর্ণিত হাদিস উল্লেখ করা হয়েছে যে, সাহাবী (রা)গণ জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসুল ! আমাদের দরুদ ও সালাম আপনার কাছে কিভাবে পেশ করা হবে? আপনি তো তখন মাটির সাথে মিশে যাবেন । প্রতুত্তরে নবী করীম (সঃ) বললেন, আল্লাহ্‌ তায়ালা মাটির জন্য নবী রাসুলদের দেহ মোবারক ভক্ষন করা হারাম করে দিয়েছেন।

হযরত আবু দারদা (রা) বলেন, রাসুলুল্লাহ (স) এরশাদ করেছেন, “তোমরা জুম্মার দিন আমার প্রতি অধিক পরিমানে দরুদ ও সালাম পেশ করবে । কেননা এই দিনটি একটি ফজিলত পূর্ণ দিন । তোমাদের কেউ আমার প্রতি দরুদ ও সালাম পেশ করলে, সে এই কাজ থেকে চিরত হওয়ার পূর্বে অবশ্যই তা আমার কাছে পেশ করা হয় । জিজ্ঞেস করা হলঃ হে, আল্লাহর রাসুল (স) আপনার মৃত্যুর পড়েও কি আপনার কাছে দরুদ পাঠান হবে? তিনি বললেনঃ হা মৃত্যুর পরেও পৌঁছান হবে । কেননা আল্লাহ্‌ তায়ালা মাটির জন্য নবী রাসুলদের দেহ ভক্ষন করা হারাম করে দিয়েছেন । সুতরাং আল্লাহ্‌র নবীগণ কবরে জীবিতই থাকেন এবং তাঁদেরকে জীবিকাও প্রদান করা হয় ।

— নাসাই, তারগিব, তারহিব, ইবনে মাজা, হাকেম