এক অগ্নি উপাসকের কাছে হুযুরের পয়গম

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
শিক্ষনীয় ইসলামী ঘটনাসমূহ 2













  • এক অগ্নি উপাসকের কাছে হুযুরের পয়গম










শিরাযের এক বুযুর্গ হযরত ফাশ (রহমাতুল্লাহ আলাইহি) বলেন, আমার ঘরে এক শিশু জন্ম গ্রহণ করে কিন্তু আমার কাছে খরচ করার জন্য কোন টাকা পয়সা ছিল না। তখন মৌসুম ছিল খুবই শীতের, বের হওয়ার উপায় ছিল না। এসব চিন্তা করে শুয়ে পড়লাম। স্বপ্নে হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর যিয়ারত নছীব হলো। তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, কি ব্যাপার? আমি আরয করলাম, হুযুর ব্যয়ভার বহণ করার মত আমার কাছে কিছু নেই, তাই এ নিয়ে খুবই চিন্তায় পড়েছি। হুযুর ফরমালেন, সকালে অমুক অগ্নি উপসকের ঘরে যেও এবং ওকে বলিও তোমাকে রসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন যে, আমাকে বিশ দিনার দেওয়ার জন্য। হযরত ফাশ (রহমাতুল্লাহ আলাইহি) সকালে ঘুম থেকে উঠে চিন্তায় পড়লেন যে, একজন অগ্নি উপাসকের ঘরে কিভাবে যাই এবং কি করে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর পয়গাম ওকে শুনাই। এটাও সত্য যে স্বপ্নে রসূলকে দেখলে সত্যিকার রসূলই হয়ে থাকে। এ দৌদল্যমান অবস্থায় সেই দিন চলে গেল। দ্বিতীয় রাত পুনরায় হুযুরের যিয়ারত নশীব হলো, হুযুর ফরমালেন তুমি ওসব চিন্তা ভাবনা ত্যাগ কর। অগ্নি উপাসকের কাছে গিয়ে আমার পয়গাম পৌঁছাও। সে মতে সকালে ঘুম থেকে উঠে আমি অগ্নি উপাসকের ঘরের দিকে যাত্রা দিলাম। গিয়ে দেখি সেই অগ্নি উপাসক স্বীয় হাতে কিছু নিয়ে দরজায় দাঁড়িয়ে আছে। যখন আমি ওর কাছে পৌঁছলাম, তখন একেত অপরিচিত, দ্বিতীয়তঃ প্রথমবার এসেছি, তাই লজ্জায় কিছু বলতে পারলাম না। সেই অগ্নি উপাসক নিজেই বললো, বড় মিয়া কি কোন কিছু বলার আছে? আমি বললাম, হ্যাঁ, আমাকে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তোমার কাছে পাঠিয়েছেন এবং আমাকে বিশ দিনার দেয়ার জন্য বলেছেন। মজুসী (অগ্নি উপাসক) স্বীয় হাত খুললো এবং বললো, নিন এ বিশ দিনার আমি আপনার জন্য হাতে নিয়ে রেখেছি এবং আপনার অপেক্ষায় ছিলাম। হযরত ফাশ দিনারগুলো নিলেন এবং মজুসীকে জিজ্ঞেস করলেন, আচ্ছা, আমিতো স্বপ্নে রসুলুল্লাহর নির্দেশ প্রাপ্ত হয়ে এখানে এসেছি, কিন্তু আমি যে আসবো এটা তোমার কিভাবে জানা হলো? সে বললো, আমি রাত্রে এ রকম আকিৃতির একজন নুরানী বুজুর্গকে স্বপ্ন দেখেছি। তিনি আমাকে বলেছেন কাল তোমার কাছে এক অভাবী ব্যক্তি আসবে, ওকে বিশটি দিনার দিও। তাই এ বিশ দিনার হাতে নিয়ে কাল থেকে অপেক্ষা করছি। হযরত ফাশ (রহমাতুল্লাহ আলাইহি) ওর মুখে যখন রাত্রে সাক্ষাত প্রাপ্ত নুরানী বুজুর্গের আবৃতির কথা শুনলেন, তখন তিনি নিশ্চিত হলেন যে, উনি হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ছিলেন। তাই হযরত ফাশ ওকে বললেন, সেই নুরানী ব্যক্তিটা ছিলেন রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) একথা শুনে সজুসী কিছুক্ষন চিন্তা করে বললো. আমাকে আপনার ঘরে নিয়ে চলুন। অতঃপর সে হযরত ফাশ (রহমাতুল্ল আলাইহি) এর ঘরে এসে মুসলমান হয়ে গেল। ওর দেখাদেখি ওর পরিবারের সবাই মুসলমান হয়ে গেল।

সবকঃ

আমাদের হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর রহমতের দৃষ্টি যার উপরই পতিত হয়, ওর কেল্লা ফতেহ। হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) স্বীয় অভাবী উম্মতের ফরিয়াদ শুনেন এবং বেছাল শরীফের পরও অভাবীদের সাহায্য করেন।

তথ্যসূত্র

  • শওয়াহেদুল হক ১৬৯ পৃঃ
  • ইসলামের বাস্তব কাহিনী - ১ম খন্ড