গোলাম রাসূল বলা বা নাম রাখা জায়েজ কিনা ?

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
উত্তরঃ

গোলাম ( غلام ) শব্দের আরবী প্রতিশব্দ হল, خادم (সেবক), عامل (কর্মচারী) প্রভৃতি। অতএব রাসূলের গোলাম বা পীরের গোলাম বা খাদেম, কর্মচারী, সেবক বলাতে কোন আপত্তি নেই। যেমন, মুসলিম শরীফের ২য় খন্ডের كتاب الالفاظ من الادب -এ বর্ণিত হয়েছে যে-

لايقولن احدكم عبدي وامتي كلكم عبيد الله وكل نساءكم اماء الله ولكن ليقل غلامي وجاريتي

অর্থাৎ, নবীজী ইরশাদ করেছেন, তোমাদের কেউ عبدي (আমার বান্দাহ) বলোনা। তোমরা সবাই আল্লাহ’র বান্দাহ এবং তোমাদের সকল মহিলারা আল্লাহ’র বান্দী। কিন্তু আমার গোলাম আমার চাকরানী বলতে পার।

— মুসলিম

এখানে সরাসরি গোলাম শব্দটিই ব্যবহার হয়েছে এবং তা ব্যবহারের বৈধতাও দেয়া হয়েছে। সুতরাং কেউ যদি নিজেকে খাদেম বা চাকর বা কর্মচারী অর্থে পীরের গোলাম বলে তা অবশ্যই জায়িয।

প্রসংগত, হাদীস শরীফে عبدي (আমার বান্দাহ) বলতে নিষেধ করা হয়েছে। কাজেই শরয়ী পরিভাষায় ইবাদাতকারী হিসেবে কেউ তার গোলামকে বা কর্মচারীকে বা খাদেমকে কিংবা কোন মুরীদ নিজেকে পীরের عبد (আবদ তথা বান্দাহ) বলতে পারবে না। কেননা ইবাদতের একমাত্র মালিক আল্লাহ পাকই; এতে সন্দেহ নেই। অন্য যে কাউকেই হোক না কেন, ইবাদাত পাওয়ার যোগ্য বা ইলাহ মনে করলে শিরক হবে; তবে এ অর্থ ছাড়া গোলাম অর্থে যদি عبد (বান্দাহ) শব্দটি কেউ তার কর্মচারী বা খাদেমকে বলে কিংবা কোন মুরীদ নিজেকে গোলাম অর্থে পীরের عبد (বান্দাহ) বলে এতে সমস্যা নেই। বরং পীরের প্রতি তা মুরীদের আদব ও ভক্তিরই বহিঃপ্রকাশ। আর কোন সহীহ মুসলমান যখন নিজেকে নবীর বা পীরের عبد (বান্দাহ) বা গোলাম বলে, নিশ্চয় সে কখনো এটা মনে করে না যে, নবী বা পীর ইবাদাতের মালিক বা আল্লাহ হয়ে গেছেন। গোলাম অর্থে আব্দ এর ব্যবহারের বৈধতার ব্যাপারে স্বয়ং কুরআন শরীফেই এসেছে। আল্লাহ বলেন-

قل ياعبادي الذين اسرفوا علي انفسهم لاتقنطوا من رحمة الله

অর্থাৎ, হে নবী! আপনি তাদেরকে সম্বোধন করুন, হে আমার বান্দাহগণ, তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ, আল্লাহ’র অনুগ্রহ হতে নিরাশ হয়ো না।

এ আয়াতেقل ياعبادي (হে আমার বান্দাগণ) এর দু’টি অর্থ প্রকাশ পায়।

এক, আল্লাহ বলেন- ওহে আমার বান্দাহগণ;
দুই, হুযুর পাককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, হে নবী আপনি বলুন, হে আমার (অর্থাৎ, আপনার) বান্দাহগণ। এ দ্বিতীয় অর্থে রাসূলুল্লাহ’র বান্দাহ বুঝানো হয়েছে, অর্থাৎ নবীজীর গোলাম এবং উম্মত।

অনেক বুযুর্গানে দ্বীন দ্বিতীয় অর্থটি গ্রহণ করেছেন। আল্লামা রুমী মসনবী শরীফে বলেছেন -

بندہ خود خواند احمد در رشاد * جملہ عالم را بخوان قل یا عباد

অর্থাৎ, সমগ্র জগতবাসীকে হুযুর স্বীয় বান্দাহ বলেছেন। কুরআন শরীফে দেখুন قل ياعبادي বলা হয়েছে।

ইযালাতুল খফা গ্রন্থে শাহ ওলী উল্লাহ সাহেব রাহিমাহুল্লাহ আর রিয়াযুন নফরা ইত্যাদি কিতাবের উদৃতি দিয়ে বলেছেন যে, হযরত উমর রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু মিম্বরে দাঁড়িয়ে খুতবা দিতে গিয়ে বলেছিলেন-

قد كنت مع رسول الله صلي الله عليه وسلم فكنت عبده وخادمه

অর্থাৎ,আমি হুযুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সাথে ছিলাম। তখন আমি তাঁর বান্দাহ ও খাদেম ছিলাম।

অতএব, প্রমাণিত হল যে, عبد (বান্দাহ) শব্দটি গোলাম অর্থে আল্লাহকে ছাড়াও ব্যবহার করা যায়।

তথ্যসূত্র