মুহাম্মাদ (সঃ) এর এলমে গায়েব সমর্থনে দলিল সমূহ 6

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
মুহাম্মাদ (সঃ) এর এলমে গায়েব সমর্থনে দলিল সমূহ





  • এলমে গায়েব সমর্থনে দলিল সমূহ 6


















কোরআন থেকে দলিল ৯

وَلَا رَطَبٍ وَّلَا يَابِسٍ اِلَّا فِىْ كِتَابٍ مُّبِيْنٍ

এবং শুষ্ক ও আর্দ্র এমন কিছুই নেই, যা উজ্জ্বল কিতাবে লিপিবদ্ধ হয়নি ।

তাফসীরে রূহুল বয়ানে উক্ত আয়াতের তাফসীর এভাবে করা হয়েছেঃ

উজ্জ্বল কিতাব দ্বারা লওহে মাহফুজের কথাই বলা হয়েছে এতে আল্লাহ তাআলা বান্দার কল্যাণার্থে সম্ভাব্য সকল বিষয় একত্রিত করেছেন। উলামায়ে রব্বানীই এসব বিষয়ে অবগত।

তাফসীরে কাবীরে এ আয়াতের ব্যাখ্যায় লিখা হয়েছে

(লওহে মহফুজে) এ ধরনের লিখার পিছনে কয়েকটি উদ্দেশ্য রয়েছে।

প্রথমতঃ

আল্লাহ তাআলা ওই সমস্ত বিষয়াদি লওহে মাহফুজে এ জন্য লিখেছেন যাতে ফিরিশতাগণ সর্বাবস্থায় খোদার ইলম জার হওয়া সম্পর্কে অবগত হন। সুতরাং এটা লওহে মাহফুজের দায়িত্বে নিয়োজিত ফিরিশতাগণের জন্য পুরোপুরি শিক্ষা গ্রহণের বিষয়ে পরিণত হয়। কেননা তাঁরা জগতে নিয়ত ঘটমান নতুন নতুন বিষয়কে ওই লিখার সঙ্গে মিলিয়ে দেখেন ও লওহে মাহফুজের লিখার অনুরূপ সবকিছু সংঘটিত হতে দেখতে পান ।

তাফসীরে খাযেনে এ আয়াতের ব্যখ্যা প্রসঙ্গে লিখা হয়েছে

দ্বিতীয় অর্থে كِتبٌ مُّبِيْن বলতে লওহে মাহফুজকে বোঝানো হয়েছে। কেননা যা কিছু হবে এবং আসমান যমীন সৃষ্টির পূর্বে যা কিছু হয়েছে আল্লাহ তাআলা সব কিছুর বিবরণ এতে লিখে দিয়েছেন। এসব কিছু লিখার উপকারিতা হলো ফিরিশতাগণ তার আল্লাহর জ্ঞান জারী করার বিষয়ে অবগতি লাভ করতে সক্ষম হন ।

তাফসীরে মাদারেকে এ আয়াতের ব্যাখ্যায় উল্লেখ করা হয়েছে

وَهُوَعِلْمُ اللهِ اَوِ الْلَوْحِ

অর্থাৎ আয়াতে উল্লেখিত উজ্জ্বল কিতাব দ্বারা খোদার জ্ঞান বা লওহে মাহফুজকে নির্দেশ করা হয়েছে ।

তাফসীরে তানভীরুল মিকিয়াস ফি তাফসীরে ইবনে আব্বাসে এ আয়াতের ব্যাখ্যায় উল্লেখিত আছে-

এসব বিষয় লওহে মাহফুজে উল্লেখিত আছে- সে সব কিছুর পরিমাণ ও সময় উল্লেখিত আছে ।

উল্লেখিত আয়াত ও এর তাফসীর সমূহ থেকে প্রতীয়মান হলো যে লওহে মাহফুজে কঠিন তরল উৎকৃষ্ট প্রত্যেক কিছুর কথা উল্লেখিত আছে। এ লওহে মাহফুজ সম্পর্কে ফিরিশতা ও আল্লাহর প্রিয় বান্দাগণ সম্যকরূপে অবগত। যেহেতু এসব হুযুর আলইহিস সলামের জ্ঞানের আন্তর্ভুক্ত সেহেতু এ সমস্ত জ্ঞান হুযুর আলইহিস সলামের জ্ঞান সমুদ্রের কয়েক ফোঁটা মাত্র ।



কোরআন থেকে দলিল ১০

نَزَّلْنَا عَلَيْكَ الْكِتَابَ تِبْيَانًالِكُلِّ شَئْىٍ

হে নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম) আমি তোমার প্রতি কুরআন অবতীর্ণ করেছি ‍যা প্রত্যেক কিছুর সুস্পষ্ট বিবরণ সম্বলিত ।

তাফসীরে হুসাইনীতে এ আয়াতের ব্যাখ্যায় উল্লেখিত আছে

আমি আপনার কছে দ্বীন দুনিয়ার প্রত্যেক বিষয়ের বিস্তারিত ও সংক্ষিপ্ত বর্ণনায় ভরপুর কুরআন অবতীর্ণ করেছি।

তাফসীরে রূহুল বয়ানে এ আয়াতের তাফসীরে উল্লেখিত আছে

ধর্মীয় বিষয় সমূহের সহিত সম্পৃক্ত বিবরণের জন্য (কুরআন অবতীর্ণ করা হয়েছে)। এতে উম্মত ও তাদের নবীগণের অবস্থা ও অন্তর্ভুক্ত ।

তাফসীরে ইতকানে এ আয়াতের ব্যাখ্যায় উল্লেখিত আছে

একদিন হযরত মুজাহিদ (রহমতুল্লাহে আলাইহে) বলেছিলেন জগতে এমন কোন জিনিস নেই যার উল্লেখ কুরআনে নেই। তখন তাকে জিজ্ঞাসা করা হলোঃ সরাইখানা সমূহের উল্লেখ কোথায় আছে?

তখন তিনি বললেন لَيْسَ عَلَيْكُم جُناحٌ اَنْ تَدْخُلُو بُيُوْتً غَيْرَ مَسْكُوْنَةٍ আয়াতেই উহাদের উল্লেখ আছে। আয়াতটির অর্থ হলোঃ যেসব ঘরে কেউ থাকে না অথচ যেখানে তোমাদের আসবাবপত্র সাজসরঞ্জাম রাখা হয় সে সমস্ত ঘরে প্রবেশ করলে তোমাদের কোন গুনাহ হবে না ।

এ আয়াত ও এর ব্যাখ্যা সমূহ থেকে এ কথাই বোঝা গেল যে কুরআনের মধ্যে উৎকৃষ্ট-নিকৃষ্ট প্রত্যেক কিছুর উল্লেখ আছে। আল্লাহ তাআলা তার মাহবুব আলইহিস সলামকে কুরআন শিক্ষা দিয়েছেন । সুতরং সমস্ত কিছুই হযরত মুস্তাফা আলইহিস সলামের জ্ঞানের আওতাধীন ।

তথ্যসূত্র