মুহাম্মাদ (সঃ) নূর সমর্থনে দলিল সমূহ 6

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search

আল বুখারী ও মুসলিম শরীফে এই বর্ণনা লিপিবদ্ধ আছে; ইমাম আহমদ (রহ:)-ও এটা বর্ণনা করেছেন নিজ ‘মুসনাদ’ কেতাবে। ইমাম বায়হাকী (রহ:) তাঁর কৃত ‘দালাইল আন্ নবুয়্যত’ (১:৩০১) কেতাবে সাহাবায়ে কেরাম ও অন্যান্যদের বাণী বিধৃত করেন যা নিচে দেয়া হলো:

রাসূলুল্লাহ (দ:) মক্কা থেকে মদীনায় হিজরত করলে তাঁর ফুপু হযরত ’আতিকা বিনতে আবদিল মুত্তালিব, যদিও ইমাম বায়হাকী (রহ:) বলেন যে তিনি কুরাইশের ধর্ম তখনো অনুসরণ করছিলেন, তিনি নিচের চরণটি আবৃত্তি করেন -

’আয়নাইয়া জুদা বি আল-দুমু’ঈ আল-সাওয়াজিমি

’আলা আল-মুরতাদা কাল-বাদরি মিন আলে হাশেমী

অর্থঃ

আমার নয়নে অশ্রুধারা প্রবাহিত অনন্যতায় মনোনীত জনের শ্রদ্ধার্ঘ্যস্বরূপ

যিনি হাশেমী পরিবারের পূর্ণ চন্দ্ররূপ ।।


হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রা:) মহানবী (দ:) সম্পর্কে বলেন:

আমিনুন মোস্তফা (দ:) লি আল-খায়রি ইয়াদ’উ

কা দাও’উই আল-বাদরি যাএয়ালাহু আল-যালামু

অর্থঃ

এক বিশ্বাসভাজন, মনোনীত জন, যিনি কল্যাণের পথে করেন আহ্বান

যেন অন্ধকার রাতে পূর্ণ চন্দ্রের কিরণ ।।


হযরত উমর (রা:) আবৃত্তি করতেন নিম্নের পংক্তি:

লাও কুনতা মিন শাইয়্যিন সিওয়া বাশারিন

কুনতা আল-মুদিআ’ লি লায়লাত আল-বাদরি

অর্থঃ

“যদি আপনি হতেন মানবের সুরত-বহির্ভূত কোনো কিছু ভিন্ন

তবে তা হতো সেই রাতের আলো যা‘তে চাঁদ হয় পূর্ণ ।।”


ইমাম বায়হাকী (রহ:) এই বর্ণনাটি লিপিবদ্ধ করেন নিজ ‘দালাইল আন্ নবুওয়া’ (১:৩০১-৩০২) গ্রন্থে এবং বলেন যে হযরত উমর (রা:) উক্ত পংক্তির সাথে আরও যোগ করেছিলেন,

মহানবী (দ:) এ রকম ছিলেন; তিনি ছাড়া আর কেউই এ রকম নয়।

জামি’ ইবনে শাদ্দাদ বলেন: আমাদের গোত্রভুক্ত এক ব্যক্তিকে তারেক নামে ডাকা হতো [1]। তিনি বর্ণনা করেন যে মহানবী (দ:)-এর সাথে মদীনায় তাঁর সাক্ষাৎ হয়;

হুজূর পাক (দ:) জিজ্ঞেস করেন, “তোমাদের সাথে এমন কিছু আছে যা তোমরা বিক্রি করবে?”

আমরা জবাবে বলি, এই উট বিক্রি করবো। রাসূলুল্লাহ (দ:) জিজ্ঞেস করেন, “কতো?”

আমরা বলি, ‘এতো ওয়াসক্ (প্রতি এককে প্রায় ২৪০ দু’ অন্ঞ্জলি-ভর্তি) খেজুর।’

মহানবী (দ:) উটের লাগাম নিজ হাত মোবারকে নিয়ে মদীনা চলে গেলেন।

তারেক ও তাঁর সাথী বল্লেন, “আমরা এমন একজনের কাছে (উট) বিক্রি করলাম যাঁকে আমরা চেনি-ও না।”

আমাদের গোত্রের এক মহিলা বল্লেন, “আমি তোমাদেরকে এই উটের দাম পাবার ব্যাপারে নিশ্চয়তা দিচ্ছি। তাঁর চেহারা মোবারককে পূর্ণচন্দ্রের মতো দেখেছি। তিনি ঠকাবেন না।”

পরের দিন সকালে এক ব্যক্তি ওই খেজুর নিয়ে এলেন এবং বল্লেন, “আমি আল্লাহর রাসূল (দ:)-এর প্রতিনিধি। তিনি আপনাদের এই খেজুর খেয়ে সুস্বাস্থ্য লাভ করতে বলেছেন।” অতঃপর আমরা তাই করি।

নোটঃ
  • ইমাম কাজী আয়ায (রহ:) এই ঘটনা তাঁর ‘শেফা শরীফ’ গ্রন্থে (ইংরেজি, পৃষ্ঠা ১৩৫),
  • ইমাম সৈয়ুতী (রহ:) নিজ ‘মানাহিল আল-সাফা’ (পৃষ্ঠা ১১৪#৫১৫) কেতাবে এবং
  • মোল্লা আলী কারী তাঁর ‘শরহে শেফা’ পুস্তকে (১:৫২৫) এটা রওয়ায়াত করেন।

তথ্যসূত্র

  1. মোল্লা আলী কারী বলেন, ’ইনি সাহাবী হযরত শিহাব আবু ‘আবদ-আল্লাহ আর-মুহারিবী (রহ:), যিনি হাদীস বর্ণনা করেন’