এই সুন্নিপিডিয়া ওয়েবসাইট পরিচালনা ও উন্নয়নে আল্লাহর ওয়াস্তে দান করুন
বিকাশ নম্বর ০১৯৬০০৮৮২৩৪

ঈদে মিলাদুন্নবী (সঃ) * কারবালার ইতিহাস * পিস টিভি * মিলাদ * মাযহাব * ইলমে গায়েব * প্রশ্ন করুন

বই ডাউনলোড

রাতের চোর

From Sunnipedia
Jump to: navigation, search
শিক্ষনীয় ইসলামী ঘটনাসমূহ 2

  • রাতের চোর






















একবার হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হযরত আবু হোরাইরা (রাদি আল্লাহু আনহু) কে সদকায়ে ফিতরের মালামাল হেফাজতের জন্য নিয়োজিত করেছিলেন। হযরত আবু হোরাইরা দিনরাত সেই মাল হেফাজত করতে লাগলেন। এক রাতে এক চোর এসে মাল চুরি করতেছিল । হযরত আবু হোরাইরা ওকে দেখে ফেলেন এবং ধরে ফেলেন এবং বলেন আমি তোকে একবার হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর খেদমতে হাজির করবো। চোর কাকুতি মিনতি করে বললো, আল্লাহর ওয়াস্তে আমাকে ছেড়ে দিন। আমার পরিবার পরিজন আছে। আমি খুবই অভাবী। একথ শুনে হযরত আবু হোরাইরার দয়া হলো এবং ওকে ছেড়ে দিলেন।সকালে আবু হোরাইরা যখন দরগাহে রেসালতে হাজির হলেন, তখন হুযুর মুচকি হেসে বললেন, আবু হোরাইরা, তোমার রাতের কয়েদী (চোর) কি বললো? আবু হোরাইরা আরয করলেন, হুযুর সে স্বীয় পরিবার পরিজন ও অভাব অনটনের কথা বলায় আমার দয়া হলো। তাই ছেড়ে দিয়েছি। হুজুর ফরমালেন, সে মিথ্যা বলেছে। সাবধান থেকো, আজ রাতেও সে পুনরায় আসবে। হযরত আবু হোরাইরা বলেন, দ্বিতীয় রাতেও আমি ওর অপেক্ষায় রইলাম। দেখতে দেখতে সে ঠিকই আসলো এবং মাল চুরি করতে শুরু করলো। আমি পুনরায় ওকে ধরে ফেললাম। এবারও সে কাকুতি মিনতি করতে লাগলো। আমারও দয়া হলো, তাই আবার ছেড়ে দিলাম। সকালে হুযুর দরগাহে হাজির হলে হুযুর পুনরায় জিজ্ঞেস করলেন, তোমার রাতের কয়েদী (চোর) কি বললো? আমি আরয করলাম, হুযুর! আজও সে তার অভাব অনটনের কথা বলছে। তাই আমার দয়া হওয়ায় আজও ওকে ছেড়ে দিয়েছি। হুজুর ফরমালেন, সে তোমার কাছে মিথ্যা বলেছে। সাবধান সে আজও আসবে। আবু হোরাইরা বলেন, তৃতীয় রাতে সে আবার আসলো এবং আমি ওকে ধরে ফেললাম এবং বললা, কমবখত! আজ তোকে আর ছাড়বো না, হুযুরের কাছে নিয়ে যাব। সে বললো জনাব আবু হোরাইরা, আমি আপনাকে কয়েকটি দোয়া শিখায়ে যেতে চাই, সেটা পাঠ করার দ্বারা আপনার উপকার হবে। শুনেন যখন শুইতে যাবেন তখন আয়তাল কুরসী পাঠ করে শুইবেন। এর দ্বারা আল্লাহ আপনার হেফাজত করবেন এবং শয়তান আপনার কাছে আসতে পারবে না। আবু হোরাইরা বলেন, সে আমাকে এ বাক্যগুলো শিখায়ে এবারও আমার থেকে রেহাই পেয়ে গেল। সকালে আমি যখন হুযুরের দরবারে পুরা কাহিনী বর্ণনা করলাম, তখন হুযুর ফরমালেন, সে এ কথাটি সত্য বলেছে অথচ সে বড় মিথ্যুক। তুমি কি জান হে আবু হোরাইরা! এ তিন রাতের চোরটা কে? আমি আরয করলাম, জ্বী না, ইয়া রাসুলল্লাহ! আমি জানিনা। হুযুর ফরমালেন, সে ছিল শয়তান।

সবকঃ

আমাদের হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বিগত ও ভবিষ্যতের সব ঘটনাবলী জানেন। হযরত আবু হোরাইরার কাছে রাতে চোর আসলো, কিন্তু সকালে হুযুর নিজেই বললেন, আবু হোরাইরা! রাতেরা কয়েদী কি বললো? এটাও বলেছেন আজ পুনরায় আসবে। ঠিকই তাই হয়েছিল। এতে বুঝা গেল, হুযুর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যা হয়েছে এবং যা হবে, সব বিষয়ে জ্ঞাত।

তথ্যসূত্র

  • মিশকাত ১৭৭ পৃঃ
  • ইসলামের বাস্তব কাহিনী - ১ম খন্ড